May 24, 2019

স্কুটি হাঁকিয়ে ৬৪ জেলা

 
স্কুটি হাঁকিয়ে তাঁরা বেরিয়েছিলেন দেশ ভ্রমণে। সাকিয়া হক ও মানসী সাহা—এই দুই চিকিৎসক বন্ধু জেলায় জেলায় যেমন ঘুরেছেন দর্শনীয় স্থান, তেমনি সচেতনতার বার্তা পৌঁছে দিয়েছেন স্কুলছাত্রীদের কাছেও। তাঁদের এই ভ্রমণের নাম ‘নারীর চোখে বাংলাদেশ’। ৫ মে এ উদ্যোগের সমাপন হবে ঢাকায়। তবে দুই বন্ধু ৬৪ জেলা ঘোরার মাইলফলক ছুঁয়েছেন আগেই। এই ভ্রমণ-অভিজ্ঞতা নিয়ে লিখেছেন সাকিয়া হক
পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্টে সাকিয়া–মানসীসহ অন্য ভ্রমণকন্যারা।পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্টে সাকিয়া–মানসীসহ অন্য ভ্রমণকন্যারা।ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সন্ধানে আমাদের উদ্দেশ্যই ছিল নিজের দেশ দেখা, সেই সঙ্গে স্কুলের মেয়েদের সচেতন করা। তবে আরেকটি অন্তর্নিহিত উদ্দেশ্য ছিল, সেটা হলো মোটরবাইকে যে নারীরাও দেশ ভ্রমণ করতে পারেন, এটা প্রতিষ্ঠিত করা। তাই আমরা যে জেলাতেই গিয়েছি, সে জেলার দর্শনীয় স্থান, ইতিহাস ও ঐতিহ্যসমৃদ্ধ স্থান ঘুরে বেড়িয়েছি, নতুনভাবে জেনেছি। প্রতিটি জেলা কোনো না কোনো কারণে আলাদাভাবে মনে থাকবে। এর মধ্যেও শেরপুর, সুনামগঞ্জ, শ্রীমঙ্গল আর রাঙামাটির কথা আলাদাভাবে বলতে হয়। এই জায়গাগুলো আমার সবচেয়ে ভালো লাগার। শ্রীমঙ্গলে যখন পা রেখেছিলাম, তখন গোধূলিবেলা। বৃষ্টি হচ্ছিল। অনেকটা মেহেদিপাতার মতো চা–পাতার কাঁচা গন্ধ নাকে এসে লাগছিল। শ্রীমঙ্গল নাম শুনলেই সেই সুগন্ধ এখনো টের পাই। আর রাঙামাটি ভালো লাগার কারণ কাপ্তাই হ্রদ আর উঁচু–নিচু পাহাড়ি রাস্তা। স্কুলপড়ুয়া মেয়েদের কাছে স্বপ্ন বিলানোর মতবিনিময়।স্কুলপড়ুয়া মেয়েদের কাছে স্বপ্ন বিলানোর মতবিনিময়।তিতলি, ক্যামেলিয়া এবং দুর্ভোগের রাত ভোলার চরফ্যাশন থেকে লক্ষ্মীপুর যাত্রাটা জীবনের রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতাগুলোর একটি। তখন ঘূর্ণিঝড় তিতলির প্রভাবে প্রবল বৃষ্টি হচ্ছিল। স্কুলের কাজ শেষে, দুপুরের খাওয়ার পর শরীরজুড়ে যখন আলসেমি জেঁকে বসেছিল, তখন তাগাদা পেলাম ফেরি ধরার। রাস্তায় নামতেই ঝুম বৃষ্টি শুরু হলো। বৃষ্টি কিছুটা কমতেই আমরা আবার বাইকে উঠি। চিন্তা-ভয়-ঘূর্ণিঝড়—সব তুচ্ছ করে আমরা যখন ইলিশ ফেরিঘাটে পৌঁছালাম, তখনই দেখি ফেরিটা ঘাট থেকে ছেড়ে যাচ্ছে। কয়েক মিনিটের জন্য ফেরিটা হাতছাড়া। উত্তাল নদীর তীরে চায়ের দোকানে পরবর্তী ফেরির জন্য অপেক্ষা ছাড়া করার কিছুই ছিল না।

দুই ঘণ্টা পর পরবর্তী ফেরি ক্যামেলিয়া এল। সাড়ে আটটার দিকে ফেরি ছাড়ল। পুরো ফেরিতে নারী বলতে আমরা চারজন। আমাদের সঙ্গে এযাত্রায় ছিলেন আরও দুজন। নদী এতটাই উত্তাল যে সমুদ্রের মতো মনে হচ্ছিল। শেষমেশ আমরা যখন লক্ষ্মীপুর পৌঁছলাম, তখন রাত ১১টা। কাদাপানি বিধ্বস্ত ফেরিঘাটের রাস্তা পেরিয়ে যখন প্রধান সড়কে উঠলাম, তখন সত্যিকার অর্থেই কোথাও কেউ নেই।