June 23, 2019

আসলেই কি আমরা পরিপূর্ণ??

রাজধানীর লেগুনাগুলোতে বাদুড়ঝোলার মত ঝুলে থাকা বাচ্চাগুলোকে দেখলে বড্ড জানতে ইচ্ছে করে তাদের কাছে জীবন মানে কি??? নিজের দৃষ্টভঙ্গি দিয়ে আমি অবশ্য ভেবে নিয়েছি হয়তো তাদের কাছে জীবন মানেই শুধু ক্ষুদপিপাসার জন্য সংগ্রাম।সেখানে জীবনযাত্রাকে সুন্দর করার অবকাশ এতটুকও নেই। কীভাবেই বা করবে?? আমাদের ভাষায়-তারা গরিবসমাজ, খেতে পায় না সব বেলা।পেটের দায় টা এতই বড় যে বাকি সব নিত্য নৈমিত্তিক চাহিদার কথাও ভুলে যেতে হয়। মাত্র কয়েকশ টাকার জন্য এইভাবে ঝুলে থাকে সারাক্ষণ লেগুনার বাইরের দিকে সংকীর্ণ একটা প্লাটফর্মের মত জায়গায়... পথে পথে বিপদ! একবার তো একজনের মাথাটাও ফেটে গিয়েছিলো...হয়তো আরো কত জনের কত কি হয়েছে তা নিতান্তই অগোচরেই রয়ে গেছে আমাদের। হ্যাঁ,তাদের জন্য হয়তো অনেকেই এইকথাটা বলবেন -তাদের মধ্যে আদবের লেশ মাত্র নেই। লেগুনায় যাত্রীদের ভাড়া তোলার জন্য তারা এতটাই ব্যস্ত যে, একটু দেরি হলেই আর রক্ষা নেই,,আদবহীন কথা বলেই ফেলবে তাদের সাথে। সেক্ষেত্রে বলি,তাদের কাছে আমরা আদব টাই বা আশা করি কিভাবে??  যারা নিজেদের লাল ছেলে বেলাকে বিসর্জন দিয়ে রুক্ষ শুষ্ক চুল নিয়ে লেগুনার উপরে জোরে জোরে বাড়ি দেয় তাদের কাছে অন্তত আর যাই হোক আদব আশা করা যায় না। ছোটবেলা থেকেই তারা শিখেছে কিভাবে সামান্য টাকা অর্জনের জন্য প্রাণপণে লড়তে হয়।আদব শেখায় সময় হয় নি যে!! এছাড়া,এই আদব হীনতার আরেকটি কারণ দর্শানো যেতে পারে, তা হচ্ছে- কাজচ্যুত হওয়ার ভয়। কারণে পাছে যদি কেউ ভাড়া না দিয়ে চলে যায় তবে দায়ভার তার। নিজের পকেট থেকে সেই টাকার ভর্তুকি দিতে হবে।এছাড়া মার ত জুটবেই কপালে.. আবার তাকে কাজ ছাড়া করে দিতেও মালিকগণ ভ্রুক্ষেপ করবেন না! তবে প্রত্যহ একটা প্রাণশক্তি যেন দেখতে পাই তাদের মাঝে... ভাললাগার দিকটা এদিকেই..কেউ কেউ তার শৈশবকে পুরোপুরিভাবে ভুলে যায় না। তার সাঙ্গপাঙ্গের কেউ যখন লেগুনায় উঠতে চায়, তাকে তখুনি সেই সংকীর্ণ প্লাটফর্মে জায়গা দেয় আর তার সাথে কলহাস্যে মুখরিত হয়ে উঠে.. কথার বিষয় গুলো মারবেল,গুলতি,মোবাইল ফোন,কোন মানুষের কিভাবে অপমৃত্যু হলো -এসব কেন্দ্রিক।দায়িত্ববোধ এর জায়গায় সবসময় সমুন্নত! তাদের বলে দিতে হয় না কখন ছোট প্লাটফর্মের উপরে দাঁড়িয়ে পড়তে হবে, কিভাবে বলতে হবে " অ্যাইই জ্যাম হইলে সোয়ারিঘ্যাট, না হইলে বায়ুবাজার"........গলার তার ছেড়া অব্দি হয়তো ধ্বনিত হয় শব্দগুলো!! তাদের উদ্যমের কমতি নেই,যদিও তারা দুবেলা খেতে পায় না! তবে আমরা কেন উদ্যমহীন???? প্রাণশক্তি কোথায় হারিয়ে গেছে??? আমাদের তো দুবেলা খেতে অসুবিধা হয় না!! ওদের আদবহীনতার কারণ দর্শানো যায়,,কিন্তু আমাদের টা কিভাবে দর্শাবো?? আমাদের জীবনের প্রয়োজনীয় দিক গুলো পূরণের সাথে সাথে তাকে সুন্দর করার দিকেও মনোনিবেশ করছি। কিন্তু আসলেই কি আমরা পরিপূর্ণ?? আমাদের জীবন খুব সুন্দর?? উত্তর টা আমিই দিই বরং-আমাদের সেই সপ্রাণোচ্ছল বাচ্চাগুলোর থেকে অন্তত প্রাণশক্তিতে ভরপুর জীবনের, উদ্যমতার শিক্ষা নিতে হবে! নিজেদের আদবহীনতার কারণ খুঁজে বের করতে হবে। তাহলেই আমরা হয়তো বলতে পারবো আমাদের প্রাণশক্তি আছে,মানুষের মত মানুষ হয়ে বেঁচে থাকার গুণাবলী আছে!..আমরা পরিপূর্ণ!!!!!  ছবি - BRAC লিখেছেন - Oyshee Shatabdee This post is powered by Eleutheromania #LifeInBangladesh #Day17 #100DaysOfPositivity#SpreadPositivity #PositiveBangladesh