June 23, 2019

মাবিয়া আমাদের গর্বের প্রতীক!

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬, ভারতের গুয়াহাটির ভোজেশ্বরী ফুগনোনি ইনডোর স্টেডিয়ামে এক অবস্মরনীয় দৃশ্যের অবতারনা হতে দেখলো দক্ষিণ এশীয় ক্রীড়াপ্রেমিরা। টিভির পর্দায় ভারত হয়ে বাংলাদেশে বসে আমরাও দেখেছি সেই দৃশ্য।আর সেই এক মিনিটের দৃশটি আমাদের অল্প কিন্তু ভীষন কাছের কিছু ক্রীড়া অর্জনের সুখ স্মৃতি গুলোর মধ্যে নিঃসন্দেহে উপরের দিকেই থাকবে। ১২ তম সাউথ এশিয়ান গেমসের তৃতীয় দিনের আয়োজনে এদিন ভারোত্তোলনে ৬৩ কেজি ওজন শ্রেণিতে ১৪৯ পয়েন্ট নিয়ে স্বর্ণ জেতেন বাগেরহাটের মেয়ে মাবিয়া আক্তার সীমান্ত। পদক প্রদানের সময় যখন ব্যাকগ্রাউণ্ডে বেজে উঠে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত “আমার সোনার বাংলা” এর সুর তখনই সেখানে দাঁড়িয়ে মুহূর্তের মধ্যে কান্নায় ভেঙে পড়েন স্বর্ণকন্যা মাবিয়া। তার এই কান্নার দৃশ্য ছুঁয়ে যায় স্টেডিয়ামে উপস্থিত প্রত্যেকটা লোককে আর দেশের সীমানা পেরিয়ে টিভি এবং ইন্টারনেটের কল্যানে চলে আসা মাবিয়ার নিজের দেশের লোকেদের কাছে। অদ্ভুত সুন্দর দৃশ্য এটা, আমরা দেখি আর শিহরিত হই, আমাদের গায়ের লোম দাঁড়িয়ে যায়, শিরিশির করে উঠে মেরুদন্ড আর প্রচন্ড দেশাত্মবোধক আবেগে কাঁপতে থাকে অতি আবেগী বাংলাদেশি মনটা। মাবিয়ার বিশ্বমঞ্চে এই কান্না মাথা উঁচু করে দাড়াবার কান্না, অনেক গর্বের কান্না এই। আমরা স্ববিষ্ময়ে অবলোকন করি বিশ্বমঞ্চে দেশের জন্য গর্ব বয়ে এনে ঠিক কিভাবে সবচেয়ে সুন্দরভাবে নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করা যায়।
হ্যাঁ, কেঁদে। অভিব্যক্তি প্রকাশের এরচেয়ে সুন্দর ভাষা তো হতেই পারেনা । সেদিনের সেই মাবিয়ার পরিচয় তুলে ধরতে আমরা ঠিক ছেলে নয় মেয়ে, ক্রিকেট নয় অন্যকিছু ইত্যাদি বিষয়গুলো নিয়ে ভাবিনা । মাবিয়া সেদিন ছিলো আমাদের গর্বের প্রতীক। ঠিক যেমনটা একই দিনে সাঁতারে শিলা বয়ে আনেন প্রথম স্বর্ণ পদক। দু দুটো প্রথমেরই শুরু আমাদের মেয়েদের দিয়ে। আমাদের গতবাধা চলমান জীবনে কিভাবে কিভাবে যেনো আমরা ধরেই নিয়েছি পেশী, শক্তি, দৃঢ়তা, খেলাধুলা ইত্যাদি বিষয়গুলা শুধু পুরুষালী। নারীদের কোমল আর নরম ভাবাটা আমাদের সমাজে কেমন একটা ব্যধির মতো হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে পরিবর্তন আসছে। মাবিয়া, সাবিনা, রুমানাদের মতো ক্রীড়া ব্যক্তিত্বরা বারবার নিজ নিজ ক্রীড়াক্ষেত্রে বিজয়ী হয়ে আমাদের সমাজের গোড়া চিন্তাগুলোকে করছেন প্রশ্নবিদ্ধ। তাই কেউ যদি আজ প্রশ্ন করে, বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রথম আন্তর্জাতিক শিরোপা কোনটি? তাহলে উত্তরদাতার ভুল ভাঙিয়ে দিয়ে আপনাকে বলতেই হবে, জ্বি না, আয়ারল্যান্ডে পুরুষ দলের শিরোপা জেতার আগেই নারী এশিয়া কাপের শিরোপাটা ছিনিয়ে এনেছে আমাদের মেয়েরা। এই কিছুদিন আগেই বঙ্গমাতা অনূর্ধব ১৯ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশীপে হয়েছে যুগ্মভাবে চ্যাম্পিয়ন । আমাদের মেয়েরা এগিয়ে যাচ্ছে। মানে আমরাই এগুচ্ছি। দুটো পায়ে এখন সমান তালে ছুটবে আমাদের তারুণ্য, দ্রুত আরো বেগবান হয়ে। যে মাবিয়ার কান্না আমাদের হৃদয়কে ছুয়ে যায়, করে বাকরুদ্ধ। একইভাবে প্রতিটি মা, প্রতিটি নারী যারা রাস্তায় ইট ভাঙেন, কাজ করেন কলকারখানা, গার্মেন্টসে, প্রতিদিন ভীষন কঠিন পৃথিবীতে জীবনের জন্য লড়াই করতে নামেন পুরুষের পাশে তাদের প্রত্যেক কে নিয়ে গর্বিত হবো, সম্মান করবো একইভাবে, এমনটাই স্বপ্ন দেখে Positive Bangladesh। This post is powered by The Hippycrites #MabiaAkhter #Day16 #100DaysOfPositivity #SpreadPositivity#PositiveBangladesh